Sykes-Picot চুক্তি যা জানা মুসলিমদের খুব দরকার।

Sykes-Picot  চুক্তি কি আপনারা কি জানেন? পোস্টটি এরিয়ে যাবেন না প্লিজ। হতে পারে এখান থেকে আপনি অনেক কিছু জানবেন যা আপনি যানেন না।

মে-১৯১৬ সালে ব্রিটিশদের মধ্যে Mark Sykes এবং ফ্রান্সের Georges Picot তারা প্রথম বিশ্বযুদ্ধর সময় Ottoman Empire কে একটি মানচিত্রের সামনে দারিয়ে ভাগকরে কে কোন অংশ নিবে।

সিরিয়া,লেবানন,তুরস্ক এই তিন জায়গা ফ্রান্স এবং ফিলিস্তিন,জর্ডান,পার্সিয়ান গালফ এর পাশের জায়গা,বাগদাদ ব্রিটিশরা নেয়ার জন্য গোপন চুক্তি করে।

Image

তারা এই ম্যাপের সামনে দারিয়ে এমন ভাবে চুক্তি করে ঠিক যেন কোন খাবারের থালার সামনে দারিয়ে মানুষ খাবার খাওয়ার জন্য একে অপরকে ডাকতে থাকে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ্যের আগেও মুসলিমদের একটি নিদৃস্ঠ সংঘবদ্ধ দল ছিল যা Ottoman Empire হিসেবে সবার কাছে পরিচিত ছিল। আর এই মুসলিমদের সংঘবদ্ধ দলকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ্যের সময় ভেঙ্গে দেবার চুরান্ত চক্রান্ত করে এই দুই দল। আর এদের কে সাহয্য করে টি ই লরেন্স নামের এক গুপ্তচর। এই গুপ্তচর Ottoman Empire খলিফাদের নিকট এতই বিশ্বস্ত ছিল যে, টি ই লরেন্স যে গুপ্তচর তা তারা বুঝতেই পারেনি। (মুসলিমরা সদা সর্বদাই অমুসলিমকে বিশ্বাস করে ঠগছে)

Sykes-Picot এই চুক্তির সাথে রসুল (সা) এর বানীর কথা মনে পরে গেল, আবু হুরাইরা (রা.) হতে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘শীঘ্রই মানুষ তোমাদেরকে আক্রমন করার জন্য আহবান করতে থাকবে, যেভাবে মানুষ তাদের সাথে খাবার খাওয়ার জন্য একে-অন্যকে আহবান করে।’

জিজ্ঞেস করা হলো, ‘তখন কিআমরা সংখ্যায় কম হবো?’ তিনি বললেন, ‘না, বরং তোমরা সংখ্যায় হবে অগণিত কিন্তু তোমরা সমুদ্রের ফেনার মতো হবে, যাকে সহজেই সামুদ্রিক স্রোত বয়ে নিয়ে যায় এবং আল্লাহ তোমাদের শত্রুর অন্তর থেকে তোমাদের ভয় দূর করে দিবেন এবং তোমাদের অন্তরে আল-ওয়াহ্হান ঢুকিয়ে দিবেন।’ জিজ্ঞেস করা হলো, ‘হে আল্লাহর রাসুল (সা.),আল- ওয়াহ্হান কি?’ তিনি বললেন, ‘দুনিয়ার প্রতি ভালোবাসা এবং ক্বিতালকে অপছন্দ করা।’ (মুসনাদে আহমদ, খন্ডঃ ১৪, হাদিস নম্বরঃ ৮৭১৩, হাইসামী বলেছেনঃ হাদিটির সনদ ভালো, শুয়াইব আল আর নাউতের মতে হাদিসটি হাসান লি গাইরিহি)

সাওবান (রা.) হতে বর্ণিত হাদিসে এসেছেঃ

حُبُّ الْحَيَاةِ وَكَرَاهِيَةُ الْمَوْتِ

‘দুনিয়ার প্রতি ভালোবাসা এবং মৃত্যুকে অপছন্দ করা।’ (সুনানে আবু দাউদ ও মুসনাদে আহমদ, হাদিস হাসান)

Sykes-Picotচুক্তি এরখমই এক খাবার টেবিলে রেখে মানচিত্রকে টুকরো করে ইসলামিক স্টেটকে খাবার মতোই। রসূল (সা) এর কথার বাস্তবতা আজ  আমাদের সামনে স্পস্ট।এই ইতিহাস বেশিদিনের নয় এইতো কিছুদিন আগের কথা।

তাই মুসলিমদের জানা উচিত তাদের আসল ইতিহাস না হলে তারা তাদের পুরানা গৌরব কিভাবে ফিরে আনবে? 

আমি কোন ইতিহাসের ছাত্র নই তাই বিস্তারিত জানতে নিচের লিংকে শায়খ ড ইয়াসির কাদির লেকচার দুটি আপাকে এ সম্মন্ধ্যে বিস্তারিত জানাতে সাহয্য করবে ইনশাআল্লাহ।

শেপিং দা মুসলিম ওয়াল্ড ১৯১৪ বাই ইয়াসির কাদি পার্ট ১

শেপিং দা মুসলিম ওয়াল্ড ১৯১৪ বাই ইয়াসির কাদি পার্ট ২

লেখাটি পড়া হলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। সাইডের লিংটা অবশ্যই দিবেন।

Advertisements